বিড়াল ছানার দাঁতের পরিচর্যা কিভাবে করবেন?

বিড়াল ছানার দাঁতের পরিচর্যা কিভাবে করবেন? বিড়াল ছানার দাঁত উঠার সময়কাল দুই ধাপে সম্পন্ন হয়। প্রথমে শিশু অবস্থায় শিশুকালের অস্থায়ী দাঁত উঠে। পরবর্তীতে শিশু দাঁত পড়ে যায় এবং নতুন করে স্থায়ী দাঁত উঠে। 

আপনি হয়তো আপনার বিড়াল ছানার দাঁত উঠার লক্ষন খেয়াল করেছেন। আপনি হয়তো ভাবছেন, কিভাবে এই দাঁতের পরিচর্যা করা উচিত?  আমাদের আজকের আর্টিকেল বিড়ালছানার এই দাঁত নিয়ে। কিভাবে বিড়ালছানার দাঁতের পরিচর্যা করবেন, দাঁত উঠার সময়কাল এসব কিছু জানতে এই আর্টিকেলটি পড়ুন।

বিড়ালের ত্বকে ব্যাকটেরিয়া জনিত সংক্রমণ হলে কি করবেন জানতে ক্লিক করুন

বিড়াল ছানাদের কি জন্মের সময়ই দাঁত থাকে?

বিড়াল ছানাদের জন্মের সময় কোন দাঁত থাকেনা। বিড়াল ছানা যখন জন্ম নেয় তখন তার কোন দাঁতের প্রয়োজন হয় না। তখন তার পুষ্টির উৎস একমাত্র মায়ের বুকের দুধ। তবে বিড়াল ছানা খুব দ্রুত বড় হয়। একটা সময় মায়ের দুধ ছেড়ে দিতে হয়, তখন তার দাঁতের প্রয়োজন হয়। 

শিশু অবস্থায় তাদের চোয়াল নরম থাকে। শিশু অবস্থায় বিড়ালছানার চোয়ালে শিশু দাঁত দেখা যায় এবং এগুলো অস্থায়ী হয়। বিড়াল ছানা আস্তে আস্তে বড় হতে থাকে এবং তার শিশু দাঁত গুলো পড়তে থাকে। সেখানে নতুন করে স্থায়ী দাঁত উঠে।

বিড়াল ছানার দাঁত উঠার সময়কাল

আমরা এখন আলোচনা করবো বিড়াল ছানার দাঁত উঠার সময়কাল নিয়ে। একদম শিশু অবস্থা থেকে প্রাপ্তবয়স্ক সময়কালের দাঁত উঠা নিয়ে। কিছু কিছু বিড়ালের ক্ষেত্রে কিছুটা ব্যাতিক্রম দেখা যায়। যদি আপনার কাছে এই ব্যাতিক্রম অস্বাভাবিক মনে হয় তাহলে আপনার পশু চিকিৎসকের সাথে যোগাযগ করুন তার পরামর্শ নিন।

শিশুর দাঁত

  • জন্ম – বিড়াল ছানাদের জন্মের সময় কোন দাঁত থাকেনা।
  • ২ থেকে ৪ সপ্তাহ বয়স – এসময় উপরের এবং নীচের চোয়ালের সামনের দিকে ছোট দাঁত দেখা যায়। এগুলোকে ইন্সিসর বলা হয়। উপরের পাটিতে ছয়টি দাঁত থাকে আর নিচের পাটিতে ছয়টি দাঁত থাকে।
  • ৩ থেকে ৪ সপ্তাহ বয়স – এ সময় বিড়াল ছানার ক্যানাইন দেখা যায়। ক্যানাইন ইন্সিসরের বাইরে থাকে। উপরের চোয়ালের প্রতিটি পাশে একটি এবং নীচের চোয়ালের প্রতিটি পাশে একটি করে বিড়ালছানার মোট চারটি ক্যানাইন থাকে।
  • ৪ থেকে ৬ সপ্তাহ বয়স – এসময় বিড়াল ছানার প্রিমোলার দাঁত উঠে। প্রিমোলার উঠার মাধ্যমে বিড়াল ছানার দাঁত উঠার ধাপ সম্পন্ন হয়। বিড়ালছানাদের উপরের চোয়ালের প্রতিটি পাশে তিনটি প্রিমোলার এবং নীচের চোয়ালের প্রতিটি পাশে দুটি প্রিমোলার থাকে।
  • ৮ সপ্তাহ বয়স – একটি বিড়াল ছানার দাঁত উঠার ধাপ সাধারনত ৮ সপ্তাহ বয়সের মধ্যেই শেষ হয়ে যায়। 

বিড়াল ছানা এবং প্রাপ্তবয়স্ক বিড়ালের দাঁত

বিড়ালছানার ২৬টি শিশু দাঁত রয়েছে । ১২টি ইনসিসার, ৪টি ক্যানাইন এবং ১০টি প্রিমোলার (উপরের চোয়ালে ছয়টি এবং নীচের চোয়ালে চারটি)। তাদের স্থায়ী দাঁত উঠার পর, তাদের ৩০-১২ টি ইনসিসর, ৪টি ক্যানাইন, ১০টি প্রিমোলার এবং ৪টি মোলার থাকে।

বিড়ালের শিশু দাঁত স্থায়ী দাঁতের চেয়ে ছোট এবং তীক্ষ্ণ হয়। এগুলো প্রাপ্তবয়স্ক বিড়ালের দাঁতের চেয়েও বেশি স্বচ্ছ হইয়ে থাকে।

প্রাপ্তবয়স্ক বিড়ালের দাঁত উঠার সময়কাল

  • সাড়ে ৩ থেকে ৪ মাস বয়স – এসময় বিড়াল ছানার শিশু ইনসিসর গুলো পড়তে থাকে এবং সেখানে প্রাপ্তবয়স্ক ইনসিসর উঠে।
  • ৪ থেকে ৫ মাস বয়স – শিশু ক্যানাইন এবং প্রিমোলারগুলো পড়তে থাকে। প্রাপ্তবয়স্ক ক্যানাইন, প্রিমোলার এবং উপরের ও নীচের চোয়ালের প্রতিটি পাশে একটি করে মোলার উঠতে শুরু করে।
  • ৫ থেকে ৬ মাস বয়স – প্রায় ছয় মাস বয়সের মধ্যে বিড়ালের প্রাপ্তবয়স্ক দাঁতের সম্পূর্ণ সেট উঠে যায়। বিড়ালের একটু পূর্ন প্রাবয়স্ক দাঁতের সেটে ৩০টি দাঁত থাকে।

বিড়াল ছানাকে কি দুধ খাওয়ানো উচিত? জানতে পড়ুন

বিড়াল ছানার দাঁত উঠার লক্ষণ

বিড়াল ছানার যখন দাঁত উঠে তখন তার বেশ কিছু আচরনগত পরিবর্তন দেখা যায়। নিচে এর লক্ষনগুলো বর্ণনা করা হলো-

  • দাঁত উঠার সময় চোয়ালে ব্যাথা অনুভূত হয়। এ সময় বিড়াল ছানা বার বার তার থাবা দিয়ে মুখে ঘষে। তার মধ্যে অস্বস্তি দেখা যায়।
  • দাঁত উঠার সময় শক্ত খাবার খেতে কষ্ট হয়। খাবার খাওয়ার সময় তার মুখ থেকে কখনো কখনো খাবার পড়ে যায়।
  • মানুষের মতই বিড়ালরাও দাঁত উঠার সময় ড্রুলিং করে।
  • দাঁত উঠার সময় বিড়াল ছানার মুখে দুর্গন্ধ হয়ে থাকে
  • নরম কিছু পেলেই কামড়ে ধরবে। 

বিড়ালের দাঁত উঠার সময় কি খেতে দিবেন?

বেশিরভাগ বিড়াল ছানাই দাঁত উঠার সময় স্বাভাবিক ভাবেই খাবার খেতে পারে। এমনকি তাদেরকে ড্রাই ক্যাট ফুডও খাওয়ানো যায়।  তবে যদি আপনি খেয়াল করেন যে, বিড়ালছানাটি খাবার খাওয়ার সময় কষ্ট হচ্ছে, খেতে পারছেনা তাহলে থাকে নরম এবং ওয়েট ক্যাট ফুড খেতে দিন। 

এছাড়া ড্রাই ক্যাট ফুড খেতে না দিয়ে ওয়েট ক্যাট ফুড খেতে দেওয়ার অন্যান্য সুবিধাও রয়েছে। ওয়েট ফুড বিড়াল এবং বিড়ালছানাদের জন্য স্বাস্থ্যকর। এতে ড্রাই ফুডের তুলনায় কম কার্বোহাইড্রেট এবং বেশি প্রোটিন ও পানি রয়েছে। যা বিড়ালের পুষ্টি চাহিদা সম্পূর্ণ ভাবে পূরণ করতে পারে। যদি আপনার বিড়াল ছানা ওয়েট ক্যাট ফুড পছন্দ করে এবং তার স্বাস্থ্যের উন্নতি লক্ষ্য করেন তাহলে তাকে সবসময় ওয়েট ক্যাট ফুড খেতে দেওয়াই ভালো।

বিড়াল ছানার দাঁত ব্রাশ

বিড়াল ছানাকে ধরে জোর করে দাঁত ব্রাশ করার চেয়ে রুটিন করে আস্তে আস্তে দাঁত ব্রাশ শুরু করুন। একটা সময় এটা তার অভ্যাসে পরিণত হবে। তাদের মুখ নরম হয়ে থাকে, তাই জোর করে দাঁত ব্রাশ করালে সে ব্যাথা পেতে পারে। এটা নিশ্চিই আপনি চান না।

বিড়াল ছানার দাঁত ব্রাশ করার জন্য আপনি অপেক্ষাকৃত নরম ব্রাশ ব্যাবহার করুন এবং তাদের কাছে কিছুটা সুস্বাদু এমন টুথপেস্ট ব্যাবহার করুন। এগুলো দিয়ে তাদের দাঁত এবং মাড়িতে আলতোভাবে ম্যাসাজ করুন। বিড়ালছানা আস্তে আস্তে প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার সাথে সাথে তার দাঁত ব্রাশ করা দৈনন্দিন রুটিনে পরিবর্তন হবে। 

Leave a Comment